খুলনার বাঐডাংগা নিবাসী কলকাতা হাইকোর্টের লব্ধ প্রতিষ্ঠা এ্যাডভোকেট ব্রজলাল শাস্ত্রী মহাশয়ের ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও ত্যাগে ১৯০২ সালে তীর্থ নদ ভৈরবের কূলে দৌলতপুরে “দৌলতপুর হিন্দু একাডেমী” স্থাপিত হয়। অতি প্রাচীন কালের আচার্যগণ পরিচালিত “গুরুগৃহ” আশ্রমের গাম্ভীর্য, পবিত্রতা ও ধর্মাচরণের সঙ্গে আধুনিক কালের উচ্চ শিক্ষার সমন্বয়ের মহৎ আদর্শ নিয়েই প্রতিষ্ঠাতা এ কার্যে ব্রতী হন। প্রতিষ্ঠাতার পরলোকগমনের পর তাঁর পবিত্র স্মৃতি যুক্ত করে প্রতিষ্ঠানের নাম দেওয়া হয় ব্রজলাল হিন্দু একাডেমী। ১৯৫০ সালে এর নাম হয় ব্রজলাল কলেজ। ১৯৬৭ সালে কলেজটিকে সরকারিকরণ করা হয়।
প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই এ কলেজের একটি গ্রন্থাগার ছিল। শুরু থেকে এ গ্রন্থাগারের উন্নতির জন্য স্বর্গীয় সতীশ চন্দ্র মিত্র, যিনি কলেজের প্রথম গ্রন্থাগারিক ছিলেন। তিনি আপ্রাণ পরিশ্রম করেছিলেন। তিনি এ কলেজের অধ্যাপক ও সুপারিটেনডেন্টও ছিলেন। তিনি গন্থাগারের সমৃদ্ধি ও শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য বিভিন্ন বিষয়ের পুস্তক সংগ্রহ করেন। গ্রন্থাগার যে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হৃদপিন্ড সম। বি এল কলেজের মতো শতবর্ষী ঐতিহ্যবাহী কলেজতো বটেই। কারণ এই কলেজে বর্তমানে ২১ টি বিষয়ে অনার্স কোর্স ও ২০টি বিষয়ে মাস্টার্স কোর্স চালু আছে।
ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষক শিক্ষিকার সংখ্যা হিসেবে এ বিদ্যাপীঠ এখন একটি পুরানো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় গ্রন্থাগারটির বহু পুস্তক বিনষ্ট হয়। বর্তমানে গ্রন্থাগারে মোট বইয়ের সংখ্যা পঞ্চাশ হাজারেরও অধিক। এর মধ্যে কিছু বই আছে পুরানো ও দুষ্প্রাপ্য।

এক নজরে কেন্দ্রীয় লাইব্রেরিতে পুস্তকের সংখ্যা

ক্রমিক সংখ্যাবিষয়ের নামপুস্তক সংখ্যা
1বাংলা5000
2ইংরেজি3000
3রাষ্ট্রবিজ্ঞান2500
4অর্থনীতি3000
5ইতিহাস2000
6ইসলামের ইতিহাস2000
7দর্শন2000
8ইসলামী শিক্ষা1000
9সমাজবিজ্ঞান2000
10সমাজকর্ম500
11হিসাববিজ্ঞান2500
12ব্যবস্থাপনা2500
13মার্কেটিং1000
14ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং1000
15পদার্থবিদ্যা1500
16রসায়ন2000
17উদ্ভিদবিদ্যা2500
18প্রানিবিদ্যা2500
19গণিত2000
20পরিসংখ্যান500
21মনোবিজ্ঞান200
22ভূগোল200
23রেফারেন্স বই2000
24এইচএসসি(পুরাতন)3000
25উর্দু/আরবী2000
26সংস্কৃত500
27অন্যান্য1500
মোট49900